উত্তরা থানার দক্ষিণখান আদর্শ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও বরেণ্য শিক্ষানুরাগী এস.এম. মোজাম্মেল হক এবং বিশিষ্ট সমাজ সেবক, রাজনীতিবিদ ও শিক্ষানুরাগী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান এস.এম. তোফাজ্জল হোসেনের পৃষ্ঠপোষকতায় ও অর্থানুকূল্যে একটি শক্তিশালী শিক্ষিত জাতি গঠনে সহায়তা দানের লক্ষ্যে ১৯৮৯ইং ৬ই জুন উত্তরা আনোয়ারা মডেল ইউনিভার্সিটি কলেজটি প্রতিষ্ঠিত হয়ে অত্যন্ত সুনামের সাথে সুষ্ঠু ভাবে পরিচালিত হয়ে আসছে। প্রতিষ্ঠানটিতে প্রাথমিকভাবে মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষা ও বিজ্ঞান বিভাগে উচ্চ মাধ্যমিক এবং বিএ, বিএসএস, বি বি এস, ডিগ্রি (পাস) কোর্স চালু করা হয়। পরবর্ততে ২০১০ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভূক্ত এ কলেজটিতে পরিচালনা পরিষদের বর্তমান সভাপতি আলহাজ্ব এস. এম. তোফাজ্জল হোসেনের ঐকান্তিক আগ্রহে এবং অধ্যক্ষ মোঃ মজিবুর রহমান এর প্রচেষ্ঠায় ব্যবস্থাপনা, হিসাববিজ্ঞান, মার্কেটিং এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু করা হয়। এছাড়াও সমাজকর্ম এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংষ্কৃতি বিষয়ে অনার্স কোর্স কোলার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। উল্লেখ্য অচিরেই মাষ্টার্স কোর্স চালু হতে যাচ্ছে। কলেজটি হযরত শাহজালাল (রঃ) আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে ২ কিলোমিটার পূর্বে এক নিরিবিলি ও সুন্দর পরিবেশে বিভিন্ন দিক থেকে সড়ক পথের সংযোগ স্থলে অবস্থিত।

কলেজটি একটি রাজনীতি ও ধূমপানমুক্ত আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত, অভিজ্ঞ ও সুযোগ্য শিক্ষকমন্ডলী দ্বারা এর শিক্ষা কার্যক্রম সূচারু রূপে পরিচালিত হয় এবং পরীক্ষার ফলাফল খুবই ভাল। কলেজটির ভৌত অবকাঠামো অত্যন্ত পরিকল্পিত ও সুষম। কলেজটিতে পর্যাপ্ত সংখ্যক শ্রেণী কক্ষ সমৃদ্ধ লাইব্রেরী, সুসজ্জিত বিজ্ঞান গবেষণাগার, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সভা-সেমিনারের জন্য অডিটরিয়াম এবং একটি বড় খেলার মাঠ আছে। এ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা কমিটি ও শিক্ষক মন্ডলী কর্তৃক সৃষ্ট ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবক সম্পর্ক অত্যন্ত সৌহার্দ্য পূর্ণ।

কলেজের বৈশিষ্ট্য

১। কলেজ ক্যাম্পাস ছাত্র রাজনীতি ও ধূমপানমুক্ত।

২। কঠোর নিয়ম শৃঙ্খলার মাধ্যমে শিক্ষার উপযোগী পরিবেশ নিশ্চিত করা হয়।

৩। সেমিষ্টার পদ্ধতিতে পাঠদান করা হয়।

৪। দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের আর্থিক সুবিধা প্রদান করা হয়।

৫। মেধা তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ ও অন্যান্য সুবিধা প্রদান করা।

৬। অ+ প্রাপ্তদের বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ দেয়া হয়।

৭। প্রতি ৫জন ছাত্র-ছাত্রী ১জন শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে থাকে এবং এসব শিক্ষার্থীকে বিশেষভাবে সব পাঠ্য বিষয়ে জ্ঞানদান করাহয়।

৮। অপেক্ষাকৃত দূর্বল ছাত্র-ছাত্রীদের অভিজ্ঞ শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে বিশেষ ভাবে পাঠদানেরর ব্যবস্থা করাহয়।

৯। মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা বিকাশে উৎসাহ প্রদানের জন্য অভ্যন্তরীন পরীক্ষার সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্তদের পুরস্কৃত করা হয়।

১০। নির্বাচনী পরীক্ষার পর মডেল টেষ্টের ব্যবস্থা করা হয়।

১১। সকল বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের কম্পিউটার শিক্ষার সুযোগ আছে।

১২। শিক্ষা সফর ও বনভোজনের ব্যবস্থা আছে।

১৩। ছাত্র-ছাত্রীদের নির্দিষ্ট ইউনিফর্ম আছে।

১৪। বিতর্ক প্রতিযোগিতা, আন্তঃ ও বহিঃ ক্রীড়া এবং স্কাউটিং এর ব্যবস্থা আছে।

১৫। প্রতিষ্ঠানটি সুযোগ্য পরিচালনা পরিষদ ও অভিজ্ঞ অধ্যাপকমন্ডলী দ্বারা পরিচালিত।